বিএসএফ এর বিরুদ্ধে বিজিবি’র অভিযোগ ; ভারতীয় পাগলকে বাংলাদেশে প্রেরণ।

বাংলাদেশ বর্ডার গার্ডের প্রতীক

ভারতীয় এক পাগলকে জোর করে নীরবে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছে বিএসএফ এর বিরুদ্ধে বিজিবি।

খাগড়াছড়ি সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় ওই পাগল ব্যক্তিকে বাংলাদেশে পুশইনের ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

শুক্রবারে উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে রামগড়-সাব্রুমে বিরাজ করে টানটান উত্তেজনা। দুই দেশ থেকেই অতিরিক্ত সেনা-সদস্য প্রেরণ করা হয়।

স্থানীয়দের থেকে জানা যায়, বিএসএফ সে দেশের মানসিক ভারসাম্যহীন ৪০ বছর বয়সী এক ব্যাক্তিকে জোর করে রামনগর সীমান্তের থানাঘাট এলাকা দিয়ে ফেনীনদী পার করে জোর করে বাংলাদেশে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করে। কিন্তু বিজিবি সেটা জানতে পেরে বাঁধা দেয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যেই চরম উত্তেজনা বিরাজ করে। দুই দেশই অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করে।

এ নিয়ে শুক্রবার রাত ৮ টায় রামনগর সাব্রুম সীমান্তের মৈত্রীসেতু এলাকায় জরুরী পতাকা বৈঠকে বসেন বিজিবি ও বিএসএফ এর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।

কিন্তু বৈঠকে বাংলাদেশ ভারতীয় পাগলকে বাংলাদেশে প্রবেশ করানোর ব্যাপারে প্রতিবাদ জানালে ভারতীয় সেনারা বলেন এই পাগল বাংলাদেশেরই। তর্ক বিতর্কের এক পর্যায়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ওই পাগল যে বাংলাদেশের সেটার সত্যনিষ্ঠ্য প্রমাণ দেওয়ার আগে পর্যন্ত তাকে বিএসএফ এর হেফাজতেই রাখতে হবে।

বৈঠকে এই ব্যাপারেও বলা হয় যে, ভবিষ্যতে পতাকা বৈঠক ছাড়া জোর করে উভয় দেশেরই কাউকে পাঠানো যাবে না। বৈঠক শেষে অতিরিক্ত মোতায়েন করা সেনাদের প্রত্যাহার করে দুই দেশ।

রিপ্লে

মন্তব্য লিখুন!
নাম