মেসির সপ্তম ব্যালন ডি’অর ‘ছিনতাই’

ছবি সংগৃহীত

ফুটবলের জাদুকরের আরেক নাম মেসি!
মাঠে দেখানো তার একের পর এক চমক বরাবরি চোখ ধাধিয়ে দেয় ভক্তদের। প্রতিবারেই যেন ফুটবলের সাথে নতুন ইতিহাস লিখেন তিনি!

১৯৫৬ সাল থেকে প্রতিবছর বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার দিয়ে আসছে ফরাসি ম্যাগাজিন ‘ফ্রান্স ফুটবল’। ফুটবলারদের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের ভিত্তিতেই করে টানা ৬৪ বছর ধরে দেওয়া হয় ব্যালন ডি’অর।

কিন্তু এবার করোনাভাইরাস মহামারীর ফলে এবার একের পর এক বন্ধ হয়ে যায় ফুটবলের বেশ কিছু বড় বড় আয়োজন। বিগত তিন মাস ধরে বন্ধ আছে মাঠের খেলাধুলা।তাই এবার সেই প্রেক্ষিতে প্রায় ৬৪ বছর পর এই প্রথম ব্যালন ডি’অর না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফ্রান্স ম্যাগাজিন।ফুটবল জগতের জন্য ব্যাপক শোকের সংবাদ এটি।

এদিকে পরিসংখ্যান বলচ্ছে, লা লিগায় ২৫টি গোল করে ৮.৭১ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন মেসি।এছারা ২০ ম্যাচে ২৫টি গোল করে ৮.১৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে মেসির ঠিক পরেই আছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। ৩১ ম্যাচে ৩৪ গোল করে ৮.১৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় পজিশনে রয়েছেন বায়ার্ন মিউনিখের তারকা ফুটবলার রবার্ট লেওয়ানডোস্কি।ও ৩০ ম্যাচে ৩০টি গোল করে ৭.৯১ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চারে অবস্থান ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। অর্থাৎ সকল পরিসংখ্যানও মেসির পক্ষেই কথা বলছে!

এদিকে ব্যালন ডি’অর না দেয়ার সিদ্ধান্তকে ভালোভাবে নেয়নি ইংল্যান্ডের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম ডেইলি সান। তাদের দাবি-এবারো মেসি সপ্তমবার ব্যালন ডি’অর পুরস্কারের জন্য উপযুক্ত ছিলেন।

আর্জেন্টাইন এ তারকা ফুটবলার চলতি মৌসুমে লা লিগায় একের পর এক রেকর্ড গড়েছেন।তা ফুটবল ইতিহাসে যুক্ত করেছে নতুন মাত্রা।শুধু তাই নয়, শত বাধাকে পিছনে ফেলে জিতেছেন রেকর্ড সপ্তমবারের মতো সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার পিচিচি ট্রফি।

রিপ্লে

মন্তব্য লিখুন!
নাম